নিউজিল্যাণ্ড

ব্রিটিশ রাজপুত্রের হানিমুন দ্বীপ

প্রকাশ : 25 জুন 2011, শনিবার, সময় : 08:20, পঠিত 3198 বার

সবচেয়ে দামি ১১ নম্বর ভিলার ভাড়াও বেশি। এখানে মূল বেডরুমে এক রাত কাটাতে লাগবে মাথাপিছু ৩ হাজার ৩৪০ পাউন্ড, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৪ লাখ ১৭ হাজার টাকা। এই ভিলায় ছোটদের থাকার সুযোগ নেই। যেন আক্ষরিক অর্থেই বিয়ের পর মধুচন্দ্রিমার স্থান!
গেল মাসে হানিমুন করে এলেন ব্রিটিশ রাজপুত্র উইলিয়াম আর তার নবপরিণীতা বধূ ক্যাথেরিন মিডলটন। মধুচন্দ্রিমার জন্য তারা বেছে নিয়েছিলেন ভারত মহাসাগরে আফ্রিকার ছোট দেশ সেইসেলস-এর আরও ছোট্ট দ্বীপ নর্থ আইল্যান্ডকে। দুই বর্গকিলোমিটার আয়তনের ব্যক্তিমালিকানাধীন এই পুরো দ্বীপটিই আসলে একটি অবকাশযাপন কেন্দ্র। তবে আগেই এখান থেকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে অনাকাঙ্ক্ষিত সব গাছপালা, যেভাবে ফসলের ক্ষেত থেকে নিড়ানি দিয়ে আগাছা ছেঁটে ফেলেন চাষি। দ্বীপ থেকে নির্বাসনে পাঠানো হয়েছে ইঁদুর-বেড়াল-শূকরের মতো সব অনাকাঙ্ক্ষিত প্রাণী। এরপর ইকো ট্যুরিজমের অংশ হিসেবে একে করা হয়েছে প্রকৃতি সংরক্ষণ কেন্দ্র। নর্থ আইল্যান্ডের ফুল-বৃক্ষ-উদ্ভিদসহ প্রকৃতিকে ঠিক রাখতে এখানে কাজ করেন একদল পরিবেশবিজ্ঞানী। এই অঞ্চলের একপ্রকার সামুদ্রিক কচ্ছপের অভয়াশ্রমও নর্থ আইল্যান্ড। চাইলে যে কেউ সেখানে গিয়ে কাটিয়ে আসতে পারেন, তবে সেজন্য অর্থ ঢালতে হবে কাঁড়ি কাঁড়ি। অবকাশযাপনের জন্য কী কী আছে নর্থ আইল্যান্ডে, আর সেখানে বেড়াতে যাওয়ার খরচইবা কেমন তা জানিয়ে দিচ্ছেন সাইফুল ইসলাম।
পুরো দ্বীপটিতে আছে ১১টি স্বয়ংসম্পূর্ণ অত্যাধুনিক ও বিলাসবহুল ভিলা। সবই একেবারে সাগরের তীরে, সাগরের দিকে মুখ করা। সব ভিলাই দূর থেকে দেখতে মনে হয় খড়ের ছাউনি দেওয়া। এর মধ্যে ১ থেকে ১০ নম্বর ভিলাগুলো একরকম। আর ১১ নম্বর ভিলাটি অন্যগুলোর চেয়ে আলাদা, এটিকে বলা যায় ভিভিআইপিদের মধ্যেও ভিভিআইপি ভিলা। এটিকে গড়ে তোলা হয়েছে দি আল্টিমেট হানিমুন বা রোমান্টিক রিট্রিট হিসেবে।

এসব ভিলা ছাড়াও দ্বীপে আছে লাইব্রেরি, ডাইনিং ভবন, সুইমিংপুল ও স্পা, ডাইভ সেন্টার, সানবাথ বার। দ্বীপে পৌঁছানোর যোগাযোগ ব্যবস্থা একটাই-নিকটতম মাহে দ্বীপ থেকে হেলিকপ্টারে করে আসতে হবে এখানে। দ্বীপে পৌঁছানোর পর পরই ডাইনিংয়ের শেফ অতিথির পছন্দ-অপছন্দ জেনে নেবে। এরপর দ্বীপেই অর্গানিক পদ্ধতিতে অর্থাত্ কোনো কৃত্রিম রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ছাড়া উত্পাদিত সবজি আর সাগর থেকে ধরে আনা ফ্রেশ মাছ দিয়ে তৈরি করা হবে অতিথির খাবার।
দ্বীপটি সমতল নয়, এর মাঝখানে রয়েছে পাহাড়। অতিথিরা চাইলে পায়ে হেঁটে যেমন পাহাড়ে চড়তে পারবেন, তেমনি পারবেন রিসোর্টের সরবরাহ করা মোটরসাইকেলে পাহাড়ে চড়তে। এ ছাড়া দ্বীপের চারপাশে আছে বেশ কয়েকটি রাস্তা, যেগুলোতে অতিথিরা বাইসাইকেলও চালাতে পারেন।
অবশ্য বেশিরভাগ অতিথির কাছে সবচেয়ে প্রিয় স্কুবা ডাইভিং। সাগরের স্বচ্ছ জলে সাঁতার কাটার পাশাপাশি সাগরতলের নয়নাভিরাম দৃশ্য দেখতে পারেন তারা। এ জন্য সঙ্গে থাকেন রিসোর্টের দক্ষ স্কুবা ডাইভিং ইন্সট্রাক্টর।
রিসোর্টের ১ থেকে ১০ নম্বর ভিলার যেকোনোটির মূল বেডরুমে এক রাত কাটাতে মাথাপিছু গুনতে হবে ২ হাজার ১১৫ ব্রিটিশ পাউন্ড, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। সঙ্গে ১৩ থেকে ১৯ বছর বয়সী ছেলেমেয়ে থাকলে পাশের ছোট বেডরুমে রাত কাটানোর জন্য লাগবে মাথাপিছু আরও ৯৫০ পাউন্ড বা প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। আর বয়স যদি হয় ৩ থেকে ১২ বছর তাহলে ভাড়ার পরিমাণ মাথাপিছু ৩০০ পাউন্ড বা প্রায় ৩৮ হাজার টাকা। ৩ বছর বয়স পর্যন্ত ছোট্ট সন্তানের জন্য কোনো ভাড়া লাগবে না।
সবচেয়ে দামি ১১ নম্বর ভিলার ভাড়াও বেশি। এখানে মূল বেডরুমে রাত কাটাতে লাগবে মাথাপিছু ৩ হাজার ৩৪০ পাউন্ড, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৪ লাখ ১৭ হাজার টাকা। এই ভিলায় ছোটদের থাকার সুযোগ নেই। যেন আক্ষরিক অর্থেই বিয়ের পর মধুচন্দ্রিমার স্থান!
ভিলার এই ভাড়ায় খাওয়া-দাওয়া, স্কুবা ডাইভিং, পাহাড়ে বাইকিং অন্তর্ভুক্ত। তবে দ্বীপ থেকে বাইরে টেলিফোন,
রিসোর্টের তালিকাবহির্ভূত পানীয়, সিগারেট, স্পা এবং গভীর সাগরে মাছ ধরতে যাওয়ার জন্য আলাদা অর্থ গুনতে হবে। দ্বীপে যাওয়া-আসার খরচও বহন করতে হবে আলাদা। নিকটবর্তী মাহে দ্বীপ থেকে কিছু প্রাইভেট কোম্পানির হেলিকপ্টার ভাড়া একেক সময়
একেকরকম হতে পারে।

আপনার পছন্দের আরও কিছু লেখা


সর্বশেষ


সর্বাধিক পঠিত

Music | Ringtone | Book | Slider | Newspaper | Dictionary | Typing | Free Font | Converter | BTCL | Live Tv | Flash Clock Copyright@2010-2014 turiseguide24.com. all right reserved.
Developed by i2soft Technology