ভারত

রাজপ্রাসাদের শহর কুচবিহার

প্রকাশ : 23 ফেব্রুয়ারি 2011, বুধবার, সময় : 11:04, পঠিত 12061 বার

লিয়াকত হোসেন খোকন
শৈশবে মানচিত্র নিয়ে খুব করে ঘাঁটাঘাঁটি করতাম। তখন থেকেই পশ্চিম বাংলার শহর কুচবিহারকে ভালো লেগে গেল। দিন যায় বছর যায়। স্কুল ও কলেজের গণ্ডি পেরিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলাম বিএ (অনার্স)-এ ক্লাসে। ১৯৭২ সাল সে বছরই প্রথম কুচবিহার যাওয়া। সেই স্মৃতি এখনও ভাসা ভাসা মনে পড়ে। তখন মনে হয়েছিল কিছুটা বিবর্ণ হলেও ছবির মতো সাজানো শহর কুচবিহার। ইতিহাসের ছাত্র ছিলাম বলেই কুচবিহারের ইতিহাস জানতে ব্যাকুল হলাম। জেনে ছিলাম ১৫২২ খ্রিস্টাব্দে বিশ্বসিংহর হাতে কুচ রাজ্যের পত্তন হলেও রায়কত শিরোপায় ভূষিত শিশু সিংহের হাতে ১৫৩৩ খ্রিস্টাব্দে রায়কত বংশের প্রতিষ্ঠা। কুচ রাজদের করদ মিত্র স্বাধীন রাজ্য ১৯৪৯-এর ১২ সেপ্টেম্বর ভারতভুক্তি হতে কামতা বা কুচবিহার একটি জেলায় রূপ পেয়েছিল। সেই থেকে জেলার সদরও বসেছে এ কুচবিহারে । আমারই ক্লাসমেট বাবুল-ই একদিন বলল দোস্ত কুচবিহারে গেলে তো চল। দেখে আসবি পাসপোর্ট ভিসার প্রয়োজন নেই। তখন তো দেশ স্বাধীন হয়েছে সবে। সুযোগটি আর হাতছাড়া করলাম না। ঢাকা থেকে লালমনিরহাটে গিয়ে এক রাত কাটানোর পর আমরা সীমান্তের কাছাকাছি এলাম। বাবুলই সব ম্যানেজ করল। সীমান্তে শুধু এইটুকু বলেছিলাম, আমরা জয় বাংলা থেকে এসেছি। এতেই বিএসএফ খুশি। ভাসা ভাসা মনে পড়ে, দিনহাটা হয়ে আমরা কুচবিহারে গিয়েছিলাম। কুচবিহার যাওয়ার পথে বাবুল বলল, কুচবিহারেই আমার জ। জের বছর পাঁচেক পর বাবা কুচবিহার ছেড়ে এলেন লালমনিরহাটে।
প্রথমবার কুচবিহারে গিয়ে বিশাল রাজপ্রাসাদ দেখার জন্য বেরুলাম। মনে আছে প্রধান গেট থেকে ভেতরে ঢুকে বেশকিছুটা পথ এগিয়ে রাজপ্রাসাদের কাছে এলাম। বাবুল বলল, রবীন্দ্রনাথের ক্ষুধিত পাষাণ কি পড়েছিস। হ্যাঁ। ও বলল, জানিস এ প্রাসাদেও ভূত পেতনী আর প্রেতাা ঘুরে বেড়ায়। ওর কথাগুলো শুনে ভয়ে বুকটা আঁতকে উঠল। সেই ১৯৭২ সালে কুচবিহারের এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় যাওয়া কষ্টকর ছিল। যোগাযোগ ব্যবস্থা তেমন একটা ভালো ছিল না।
প্রায় ৩৬ বছর পর কুচবিহারের কথা বেশ করে মনে পড়ায় কুচবিহারকে কাছ থেকে আবারও দেখব বলে বেনাপোল সীমান্ত অতিক্রম করে বনগাঁ থেকে লোকাল বাস ধরে এলাম কলকাতার ধর্মতলায়। দুপুর ২টায় বাস ছেড়ে যাচ্ছে কুচবিহারের উদ্দেশে। হাত তুলতেই বাসচালক বাস থামালেন। কন্ডাক্টরকে বললাম, কুচবিহার যাব। তিনি উঠতে বললেন। পছন্দ মতো একটি সিট বেছে নিয়ে বসতে বললেন। পরদিন সকাল দশটার দিকে বাস এসে থামল কুচবিহারে। রিকশা নিয়ে ইলোরা হোটেলের দিকে রওনা হলাম। আগে থেকেই জানতাম ইলোরা হোটেলের নাম। ইলোরা হোটেলেই লাগেজ রেখে এক ঘণ্টা রেস্ট নেয়ার পর কুচবিহার রাজপ্রাসাদ দেখার জন্য নিচে নেমে এলাম। যে দিকে তাকাই মনে হয় কত না সাজানো-গোছানো শহর। তবে কুচবিহারকে ৩৬ বছর পর দেখে মনে হল, অসম বাংলার যোগাযোগকারী পথে বাণিজ্যকেন্দ্র হিসেবে কুচবিহারের পরিচিতি থাকলেও, কুচবিহার জেলা তথা শহর পর্যটন মানচিত্রে এখনও জায়গা করে নিতে পারেনি। অথচ শৈব-শক্তি-বৈষ্ণব দেবালয়, সুরম্য রাজপ্রাসাদ, ঐতিহ্যময় বাড়িঘর, ছোট বড় দিঘি নিয়ে গড়ে ওঠা কুচবিহার শহর ঘিরে তৈরি হতে পারে নতুন একটি ভ্রমণ সার্কিট। তবে এ জেলার লোকগীতি ও লোকবাদ্যও সমীহ করার মতো। এক স্টুডিওতে ফিল্ম কিনতে গিয়ে এক ভদ্রমহিলার সঙ্গে পরিচয় হয়। তাকে জানালাম, বাংলাদেশ থেকে এসেছি। এ কথা শুনে উনিত বেজায় খুশি। বললেন, রাতের বেলা নিমন্ত্রণ রইল, দাদা আসবেন কিন্তু। কথায় কথায় ওই ভদ্র মহিলা জানালেন, কুচবিহার এ নামটি নিয়ে নানা মুনির নানা মত। একটি লোকের কথা অনুসারে কুচ বধুপুর ছিল শিব-পার্বতীর বিচরণস্থল। পরশুরামের ভয়ে ভীত ক্ষত্রিয়রা এসে ভগবতীর ক্রোড়ে বা কুচে আশ্রয় নেয়ার ফলে নাম হয় কুচবিহার।
কুচবিহার রাজপ্রাসাদ দেখার জন্য দুপুর ২টায় এলাম। ওখানে গিয়ে দেখলাম রাজপ্রাসাদের একতলা এবং দোতলায় কয়েকটি সংগ্রহশালা গড়ে তোলা হয়েছে। রাজ পরিবারের সঙ্গে সম্পর্কিত ঐতিহাসিক সামগ্রীর অসাধারণ সংগ্রহ এখানে প্রদর্শিত হয়েছে। এ ছাড়া রয়েছে কুচবিহার জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে সংগৃহীত অমূল্য সব প্রততাত্ত্বিক নিদর্শন। ওখানেই পরিচয় হল এক গাইডের সঙ্গে। তিনিই জানালেন, মহারাজা নৃপেন্দ্র নারায়ণের রাজত্বকালে এ প্রাসাদের নির্মাণ কার্য শেষ হয় ১৮৮৭ সালে। সেই সময় খরচ পড়েছিল প্রায় ৯ লাখ টাকা। তার সঙ্গে এলাম বিশাল দরবার হলে। তখন শুধুই যে তাকিয়ে থাকা। একটু পর ওখান থেকে বেরিয়ে এলাম। পাশেই রাজবাড়ি পার্ক সেখানে এসে বসলাম। অদূরে একটি ছেলে একাকী বসেছিল। হাত ইশারা করে ডাকতেই ও কাছে এল। জিজ্ঞেস করলাম তোমার নাম? বলল, ফিরোজ। তোমাদের বাড়ি কি কুচবিহারে? হাসতে হাসতে জানাল হ্যাঁ এখানেই তো।

ছেলেটি জানতে চাইল, আপনি কি কলকাতা থেকে এসেছেন? বললাম না। বাংলাদেশ থেকে এসেছি। ফিরোজকে বললাম, বিকালে ইলোরা হোটেলে এস। তোমাকে নিয়ে মদন মোহন ঠাকুরবাড়ি যাব। হোটেলে ফিরে গিয়ে দুপুরের খাওয়া সেরে টেলিভিশন ছেড়ে দিয়ে বিছানায় শুয়ে পড়লাম। বিকাল ৫টায় ফিরোজ এল। বললাম, চল কোথাও গিয়ে বিকালের নাস্তাটা খেয়ে নেই। ইলোরা হোটেল থেকে বেরিয়ে রাস্তার পাশে একটা রেস্টুরেন্টে ঢুকে স্যান্ডুইচ ও কোল্ড ড্রিংক্স নিলাম। ফিরোজ বলল, মদন মোহন মন্দির দেখা শেষ করেই কিন্তু বারে গিয়ে হার্ড ড্রিংক্স করব। ওর কথা শুনে হ্যাঁ তাই হবে। ফিরোজের বয়স আঠারো কি উনিশ তখন। বেশ খোলামেলা কথা বলতে বড় পছন্দ করে, তাই ওকে আমার ভীষণ ভালো লেগে গেল। রিকশায় উঠে দুজনে এবার মদন মোহন মন্দির দেখার জন্য চললাম। মদন মোহন ঠাকুরবাড়ি নামে খ্যাত মন্দিরটি শহরের মাঝখানে। ১৮৮৫ সালে মহারাজা নৃপেন্দ্র নারায়ণ এ মন্দিরটি স্থাপন করেন এ কথা রিকশায় বসে ফিরোজ বলেছিল। উঁচু পাচিল দিয়ে ঘেরা বিস্তৃত মন্দির প্রাঙ্গণে এসেই প্রবেশদ্বারের ওপর প্রাচীন নহবতখানা দেখলাম। এখানে মূল দেবতা মদন মোহনের ঘরের ওপর একটি গম্বুজ দেখতে পেলাম। সন্ধ্যা তখনও হয়নি। এক পূজারীর সঙ্গে আমাদের পরিচয় হল। তিনি বললেন, সন্ধ্যার পরে আসুন। বেশ আনন্দ পাবেন। কি আর করা, আমরা ঘুরে ফিরে সন্ধ্যার পর সিদ্ধান্ত নিলাম। এদিকে ফিরোজের মোবাইল বেজে উঠল। কথা শেষ করে বলল, আংকেল আমাকে বাড়ি ফিরতে হবে। ফিরোজ চলে গেল। আমি মন্দিরের আশপাশে রয়ে গেলাম। সন্ধ্যার পর মন্দির প্রাঙ্গণে এসে পনেরো বছর বয়সী জীবন নামে একজনের সঙ্গে পরিচয় হয়। সে আমাকে বলল, আমিই আপনাকে মন্দির দর্শন করাব। তখন মন্দিরের দিকে তাকাতেই মনে হল, মন্দির যেন সম্পূর্ণ আলোকিত। এদিকে আরতির ধূপ-ধূনো সব মিলিয়ে তৈরি হয়েছে মোহময় আবেশ। সেই ক্ষণে জীবন ও আমি মন্দিরের ভেতর ঢুকলাম। এখানে মদন মোহনের ডান পাশের ঘরে মহাকাল মূর্তির ওপর কষ্টিপাথরের কালীমূর্তি, বাঁ দিকের ঘরে দেখলাম অষ্টধাতুর জয়তারা, অন্নপূর্ণা, কাত্যায়নী ও মঙ্গলচণ্ডীর মূর্তি। দেব-দেবীর মূর্তি দেখতে দেখতে কেমন যেন একটু ভয় ভয় লাগল। জীবনের হাত শক্তভাবে ধরে এবার মন্দির থেকে বেরুলাম। হোটেল ইলোরায় ফিরে এলাম রাত ৯টায়। দরজা বন্ধ করতেই মনে হল, এখানে বুঝি প্রেতাা ঘুরে বেড়াচ্ছে। কি আর করা, সারারাত লাইট জ্বালিয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করেছি। ঠিকভাবে ঘুমই হল না।
পরদিন সকালে নাস্তা খেয়ে বিছানায় এলিয়ে পড়লাম কখন যে ঘুমিয়ে পড়লাম বলতেই পারব না। বিকালবেলা একটু অসুস্থ হয়ে পড়লাম। এবার একা একা এক ফার্মেসিতে গিয়ে চিকিৎসক আছেন কিনা জানতে চাইলাম। ফার্মেসির লোকজন বলল, তিনিতো এই মাত্র চলে গেছেন। তবু বসুন ফোন করে ওনাকে নিয়ে আসি। পনেরো মিনিটের মধ্যে চিকিৎসক এসে উপস্থিত। তার রুমে ঢুকে অসুস্থের কথা জানালাম। তিনি আমাকে বেশ ভালো করে দেখলেন। আমি বললাম, বাংলাদেশ থেকে এসেছি...। এবার তিনিই বললেন, আমাদের পূর্ব পুরুষদের আদিবাড়ি কিন্তু আপনাদের বাংলাদেশের গাইবান্ধাতে। ১৯৪৭ সালের পর তারা এ কুচবিহারে চলে এলেন। চিকিৎসকের নাম হল ডা. এস পাল।
চিকিৎসাপত্রটি হাতে দিয়ে বললেন, আপনি কোথায় উঠেছেন?
বললাম, ইলোরা হোটেলে।
তিনি বললেন, রাত দশটার দিকে আপনাকে গিয়ে একবার দেখে আসব। সত্যি সত্যিই চিকিৎসক ভদ্রলোক এসেছিলেন। তখন প্রশ্ন জাগল, আমাদের বাংলাদেশে এমনটি কি আশা করা যায়?
পরদিনও কুচবিহারে ছিলাম। ৮০ টাকায় রিকশা ভাড়া করে শহরের একটু দূরে তোর্মা নদীর তীরে গেলাম। তখন মনে পড়ল কণ্ঠশিল্পী আব্বাসউদ্দিনের কথা। তার আসল দেশ তো এই কুচবিহারে। তিনি তো তোর্মা নদীকে নিয়ে গানও করেছেন। ওখান থেকে ফিরে এলাম শহরে। যেদিকে যাই মনে হয়, কুচবিহার শহরটি দেখতে অতি সুন্দর তো। বাহ্ এখানে আছে তরুবীথিযুক্ত প্রশস্ত রাজপথ। আহা কি-ই-না সুন্দর প্রমোদ উদ্যান। দীর্ঘ সরোবর সবই আছে। বাহ্ আরও আছে আম-কাঁঠাল-গুবাক। বৃক্ষ যেন শহরটিকে একটি সুন্দর কুশবনে পরিণত করেছে। তাই কুচবিহার ছেড়ে কিছুতেই ফিরতে ইচ্ছা করছিল না।
পরদিন দার্জিলিং যাব বলে প্রস্তুতি নিলাম এবং খুব ভোরে ঘুম থেকে উঠে তাই-ই করলাম। চললাম দার্জিলিংয়ের দিকে...।


সর্বশেষ


সর্বাধিক পঠিত

Music | Ringtone | Book | Slider | Newspaper | Dictionary | Typing | Free Font | Converter | BTCL | Live Tv | Flash Clock Copyright@2010-2014 turiseguide24.com. all right reserved.
Developed by i2soft Technology