নড়াইল

সবুজ শ্যামল অরুনিমা

প্রকাশ : 25 জুন 2011, শনিবার, সময় : 12:11, পঠিত 3134 বার

চাকরি কিংবা ব্যবসা-কাজ করতে করতে হাঁপিয়ে উঠলেই মন একটু বিশ্রাম চায়। চায় মানুষের কোলাহল থেকে একটু দূরে কোথাও নিরিবিলি সময় কাটাতে। আবার শহুরে মন দূরে গিয়েও নাগরিক সুযোগ-সুবিধা খোঁজে। খোঁজে ছোট ছেলেমেয়েরা লেখাপড়ার একঘেয়েমি ভুলে অল্পসময়ের জন্য হলেও আনন্দময় সময় কাটাবে এমন পরিবেশ। বাংলাদেশের শ্যামল-সবুজ গ্রামের খোলা হাওয়ায় এমনই পরিবেশে সময় কাটানোর সুযোগ তৈরি করেছে শাহবাজ ট্যুরিজম লিমিটেড। এই প্রতিষ্ঠান নড়াইল উপজেলার কালিয়া উপজেলায় পানিপাড়ায় গড়ে তুলেছে অরুণিমা গলফ ক্লাব অ্যান্ড রিসোর্ট। তবে গলফ ক্লাবের চেয়ে অরুণিমা ইকোপার্ক, অরুণিমা কান্ট্রিসাইড বা পানিপাড়া পর্যটন কেন্দ্র নামেই স্থানীয়দের কাছে এটি বেশি পরিচিত। অবকাশযাপন কেন্দ্র বলতে যা বোঝায় ঠিক তাই অরুণিমা গলফ ক্লাব অ্যান্ড রিসোর্ট।
কী নেই অরুণিমা কান্ট্রিসাইডে? মধুমতি নদীর তীরে গড়ে তোলা এই রিসোর্টে আছে এসি, নন-এসি ৩৬ কক্ষের বিভিন্ন ধরনের কটেজ। আছে ৪০ বেডের তিন কক্ষবিশিষ্ট একটি ডরমিটরি, ডাইনিং হল, কনফারেন্স হল, ট্রেনিং সেন্টার। রিসোর্টের ভেতরে আছে ১৯টি পুকুর, নাইন হোল গলফ কোর্স, ক্রিকেট, ফুটবল, ভলিবল খেলার মাঠ, ছোটদের বিনোদনের জন্য খেলাধুলার পার্ক, পাখির অভয়ারণ্য, ঝাউবন, গোলাপ ফুলের বাগান, ফলের বাগান, পুকুরের মাঝখানে নদী কিংবা পুকুরে লঞ্চ বা নৌকায় বেড়ানো, আরও অনেক কিছু।
সবচেয়ে মনোরম কটেজগুলোর সৃষ্টিশৈলী আর অবস্থান। দুই পাশে লেক রেখে মাঝখানে তৈরি হয়েছে ছোট ছোট কটেজ, যার ওপরটা দেখতে মনে হবে খড়ের ছাউনি দেওয়া। আছে কাঠের ঘর। এসব কটেজের বেশিরভাগই  শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত।
মোটকথা নাগরিক সুবিধায় গাছপালা-নদী-পুকুর ঘেরা গ্রামীণ পরিবেশে পরিবার নিয়ে একটি দিন কাটানোর কোনো কিছুরই অভাব নেই। রিসোর্টের বাইরে বেরোলেই এক্কেবারে খাঁটি গ্রাম।



মাওয়ায় পদ্মা নদী পার হয়ে গোপালগঞ্জ বিশ্বরোড ধরে ভাঙ্গা যেতে হবে। সেখান থেকে ভাটিয়াপাড়া হয়ে চন্দ্রদিঘলিয়া। সেখানে বরফা ফেরিঘাট পার হলেই অরুণিমা কান্ট্রিসাইড। নিজের বা ভাড়া করা গাড়ি নিয়ে গেলে ঢাকা থেকে অরুণিমা কান্ট্রিসাইডে পৌঁছতে সময় লাগবে ৪ ঘণ্টা, অবশ্য যদি ফেরিঘাটে অস্বাভাবিক দেরি না হয়। আর বাসে গেলে যোগ করে নেবেন আরও ঘণ্টা দেড়েক সময়।
অরুণিমার কটেজগুলোর ভাড়া ১২০০ টাকা থেকে ৫০০০ টাকা। ক্রেডিট কার্ডধারীরা কটেজে থাকার ক্ষেত্রে ৩৫ শতাংশ ছাড় পাবেন। ডরমিটরিতে থাকার জন্য প্রতি বেডের ভাড়া ৩০০ টাকা। এ ছাড়া বোটিং, লঞ্চ চড়া, গলফ খেলা-এসবের জন্য দিতে হবে বাড়তি টাকা। এখানে পাবেন নদী থেকে ধরা মাছ থেকে শুরু করে রিসোর্টের নিজস্ব জমিতে ফলানো সবজিসহ সব ধরনের ফ্রেশ খাবার। আছে অস্ট্রেলিয়ান বার-বি-কিউর ব্যবস্থা।
প্যাকেজের ব্যবস্থাও আছে এই রিসোর্টে। এসি কটেজে দুজনের জন্য দুই রাত তিন দিনের প্যাকেজ ৯৭০০ টাকা। তিন বেলার খাবারও এতে অন্তর্ভুক্ত। নন-এসি কটেজে একই প্যাকেজ ৭৩০০ টাকা। এক রাত দুই দিনের প্যাকেজ এসি কটেজ ৫৪০০ টাকা ও নন-এসি কটেজ ৪২০০ টাকা। যাওয়া-আসার ব্যবস্থা করতে হবে আপনাকে।
ঢাকায় অরুণিমা গলফ ক্লাব অ্যান্ড রিসোর্টের অফিসের ঠিকানা : বাড়ি-১, লেন-১, খান-ই-খোদা রোড, পশ্চিম ভাটারা, বারিধারা নতুন বাজার। ফোন-৯৮৯৬৯৪৫। এ ছাড়া সরাসরি রিসোর্টের ম্যানেজার আবদুল হাকিমের সঙ্গেও যোগাযোগ করতে পারেন। ফোন-০১৭২৮৬০৩৭৪৯।
শিমুল হাসান 


সর্বশেষ


সর্বাধিক পঠিত

Music | Ringtone | Book | Slider | Newspaper | Dictionary | Typing | Free Font | Converter | BTCL | Live Tv | Flash Clock Copyright@2010-2014 turiseguide24.com. all right reserved.
Developed by i2soft Technology