বান্দরবন

বগালেক ট্রাজেডি

প্রকাশ : 06 অক্টোবর 2010, বুধবার, সময় : 20:46, পঠিত 5567 বার

মহসীন কবির লিমন
ঢাকা শহরের একঘেয়েমি জীবনযাত্রা থেকে কিছুটা স্বস্তি পেতে ঈদের ছুটিতে ঘুরে এলাম বান্দরবানে। কথা ছিল বান্দরবান শহরে গিয়ে মেঘলা ও নীলাচল পাহাড় ঘুরেই ঢাকা ফিরব। কিন্তু বান্দরবান যাওয়ার পর আমাদের মামুন ভাই ও গোপাল দা বেঁকে বসলেন। তাদের একটিই কথা এখানে যখন এসেছি এবার বগালেক ও কেওক্রাডং যেতেই হবে। আটজনের টিমের দুইজন সোহাগ ও হিমেলের একবার বগালেকসহ কেওক্রাডং যাওয়ার অভিজ্ঞতা আছে। তাই তারা যেতে রাজি নয়। সোহাগ বারবার বলতে লাগল, ব্যাপারটা এত সহজ নয়, ওখানে যাওয়া অনেক কষ্টের। আমি কিন্তু দুই নৌকাতেই পা রাখলাম। বললাম গেলেও আমার সমস্যা নেই। না গেলেও নেই। কিন্তু মনে মনে বরাবরই যাওয়ার ইচ্ছা, কি আর এমন কষ্ট হবে। আমার সঙ্গে তাল মেলালেন স্বল্পভাষী ওয়াছিম ভাই। যা হোক, অনেক বাক্যচারিতার পর শেষ পর্যন্ত ঠিক হল আমরা বগালেক ও কেওক্রাডং যাচ্ছি। পরের দিন সকাল ৯টায় বগালেকের উদ্দেশে রওনা দেয়ার কথা থাকলেও সোহাগ ঘুম থেকে উঠতে দেরি করায় আমরা দুপুরে যাত্রা শুরু করলাম। বান্দরবান বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে জানা গেল আমাদের জিপ মানে চান্দের গাড়ি ভাড়া করে রুমাবাজার পর্যন্ত যেতে হবে, শেষ পর্যন্ত ৩৫০০ টাকা ভাড়ায় একটি চান্দের গাড়ি ঠিক করা হলো। তিন ঘন্টা পর জিপটি আমাদের সাংগু নদীর একটি ঘাটে নামিয়ে দিল আর বলল এবার নৌকায় ঘন্টাখানিক গেলেই রুমা বাজার। দেড় ঘন্টা পর আমরা নৌকা থেকে নামলাম। ক্ষুধার তাড়নায় একটি হোটেলে খেতে বসে জানতে পারলাম সাড়ে ৫টার পর বগালেকের উদ্দেশ্যে কর্তব্যরত নিরাপত্তা যেতে দেয় না। তড়িঘড়ি করে একটি গাইড ভাড়া করে তার পিছে পিছে হাঁটতে লাগলাম। এর মধ্যেই আমাদের আরেক সঙ্গী নিজাম ভাই বললেন, তিনি আর যাবেন না। আমরা তাকে রুমাবাজারে রেখেই বগালেকের উদ্দেশে রওনা দিলাম।
গাইড আমাদের নিয়ে চলেছে, প্রায় ঘূক্ষাখানেক হাঁটার পর গাইডের কথামত আবার ১৫০০ টাকায় একটি চান্দের গাড়ি ভাড়া করা হল। আমাদের চান্দের গাড়ি ছুটে চলছে, সরু রাস্তার দুই ধারে যতদূর চোখ যায় শুধু পাহাড় আর পাহাড়। গাড়ি থেকে তাকালে নিচে কোন তল নেই, ভয়ে ভয়ে আমরা এ পাহাড়ে উঠছি, তারপর আরেক পাহাড়ে, তারপর আরেক। এ যেন প্রাকৃতিক রোলার কোস্টার। দুই ঘন্টা পর আমাদের চান্দের গাড়ি নামিয়ে দিল পাহাড়ি এক বাজারে। ততক্ষণে সূর্য ডুবে গেছে। গাইড আমাদের সবার জন্য একটি করে লাঠি আনল, সেই সঙ্গে বলল, এটি সবার হাতে রাখতে। কারণ এবার আমাদের আসল যাত্রা শুরু। মানে আমাদের আরও তিন থেকে সাড়ে তিন ঘণ্টা পাহাড়ি সরু পথে হেঁটে পাহাড়ে উঠতে হবে। গাইডের ভাষায় বেশি নয়, মাত্র আট নয় মাইল উপরে উঠলেই সেই বগালেক। পাহাড়ি পোকামাকড় ও সাপের হাত থেকে বাঁচার জন্য চোখ কান খোলা রেখে টর্চের আলোয় সবাই হাঁটতে লাগলাম গাইডের পিছে পিছে। অর্ধেক রাস্তায় গিয়ে আমরা সবাই ঘেমে ক্লান্ত। তারপরও কিছুই করার নেই আমাদের, উপরে উঠতেই হবে। এবার মামুন ভাই ও গোপাল দা হিমের আর সোহাগকে বকতে লাগলেন তোরা আগে বলিসনি কেন এতটা কষ্ট হবে যেতে, ভালোভাবে বললে তো আর আসতাম না। সোহাগ তাদের কথা শুনে হাসতে হাসতে বলল, আমি আগেই বলেছিলাম, যেন এবার ঠ্যালা বোঝ। শেষপর্যন্ত তিন ঘণ্টা পথ পাড়ি দিয়ে আমরা পাহাড়ের চূড়ায় পৌঁছালাম, কিন্তু ততক্ষণে গোপাল দার অবস্থা একদম হালুয়া, একেবারে ওখানেই চিৎপটাং। সবাই এই ভেবে স্বস্তি পেলাম যাক আর উপরে উঠতে হবে না। এবার বিশ্রাম। পাহাড়ি গ্রামে গিয়ে আমরা আরও কিছু পর্যটক পেলাম, বগালেকের আশপাশের পাহাড়িরা তাদের বাড়িতেই পর্যটকদের জন্য থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন। আমরা একটা ঘর ভাড়া নিয়ে রাতে ঘুমালাম, রাতের অন্ধকারে আর বগালেকের সৌন্দর্যের কিছুই দেখতে পেলাম না। সকালে ঘুম থেকে উঠে বুঝতে পারলাম আমরা সারারাত মেঘের ভেতর ছিলাম। তারপর বগালেগের দিকে তাকাতেই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপরূপ রূপ দেখে ক্লান্ত দুচোখ ছাপিয়ে চোখে ভাসতে লাগল আনন্দ। চারপাশে পাহাড়ের সারি, মাটি থেকে হাজার হাজার ফুট উপরে কবে কি ভাবে এ লেক সৃষ্টি হয়েছে তা কেউ জানে না। এই বগালেগে পানি আসার কোন উৎস নেই আর সেখানকার সবার ভাষ্য মতে, দেশী বিদেশী অনেক গবেষকই এই লেকের পানির উৎস ও পানির তল পরিমাপ করতে গিয়ে বার বার ব্যর্থ হয়েছেন। চারপাশের সৌন্দর্যে বিমোহিত হয়ে আমরা বার বার চিৎকার করে বলতে লাগলাম এই তো আমার দেশ, এটাই বাংলাদেশ। পরিশেষে সবার জ্ঞাতার্থে বলতে চাই, ছিয়ানব্বই কেজি ওজনের আমাদের গোপাল দা নাকি বগালেকে আগত বিশালদেহী প্রথম মানব, এরকম সুস্বাস্থ্যের অধিকারী আর কাউকে বগালেকে কেউ কোন দিন দেখেনি। এ কথা শুনে গোপাল দার সব শারীরিক কষ্ট হঠাৎই হাওয়ার বেগে ফুরুত করে উড়ে গেল। নিয়নের আলোয় পিচঢালা রাস্তার এই শহরে পাহাড়ি স্মৃতির রেশ না কাটতেই, সেদিন হঠাৎই গোপাল দার ফোন, ফেসবুকে সব ছবি দিয়ে দিয়েছি। অসাধারণ, দেখে নিও আর তাড়াতাড়ি প্লান কর কোরবানি ঈদের ছুটিতে কোথায় যাওয়া যায়?



সর্বশেষ


সর্বাধিক পঠিত

Music | Ringtone | Book | Slider | Newspaper | Dictionary | Typing | Free Font | Converter | BTCL | Live Tv | Flash Clock Copyright@2010-2014 turiseguide24.com. all right reserved.
Developed by i2soft Technology