শেরপুর

নেওয়াবাড়ি টিলা : হতে পারে পর্যটন কেন্দ্র

প্রকাশ : 23 জানুয়ারি 2016, শনিবার, সময় : 10:02, পঠিত 1505 বার

শাহরিয়ার মিল্টন :
নেওয়াবাড়ি টিলা কোন বাড়ি বা আবাসিক স্থান নয়। এটা একটি পাহাড়ি টিলা যা শেরপুর জেলার শ্রীবরদী উপজেলার গারো পাহাড়ে অবস্থিত। পাহাড়ের চুড়ায় প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে ভরপুর নেওয়াবাড়ি টিলা। ভারতের মেঘালয় রাজ্য ঘেষা শ্রীবরদীর সীমান্তবর্তী নেওয়াবাড়ি টিলায় হতে পারে পর্যটন কেন্দ্র। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে লীলাভূমি নেওয়াবড়ি টিলায় পর্যটন  কেন্দ্র গড়ে উঠলে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে রাখতে পারবে গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা। সরকারিভাবে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ ও পৃষ্ঠপোষকতায় সম্ভাবনাময় এ পাহাড়ী জনপদে পর্যটন শিল্প গড়ে তুললে পিছিয়ে পড়া নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠি অধুষিত এ অঞ্চলের উন্নয়নের পাশাপাশি অনেক লোকের কর্মসংস্থানের পথ সৃষ্টি হবে।

নামের আদি কথা  :
জনশ্রুতি রয়েছে, এক সময় এ টিলায় প্রাকৃতিকভাবে গড়ে উঠা প্রচুর পরিমান বিভিন্ন প্রজাতির লতা (নেওয়া) ও বৃক্ষ ছিল। একারণেই টিলাটি নেওয়াবাড়ি টিলা হিসেবে এ অঞ্চলের মানুষের কাছে পরিচিতি লাভ করে। এ টিলার প্রায় ২০ একর সমতল ভূমি জুড়ে রয়েছে চোখ জুড়ানো মনোমুগ্ধকর সবুজের সমারোহ। আশির দশকে ময়মনসিংহ বন বিভাগের বালিজুড়ি রেঞ্জের আওতায় এখানে গড়ে উঠে উডলট বাগান। এ টিলার চারদিকে বসবাস করেন গারো, কোচ, হাজং, বানাই ও মুসলমান সম্প্রদায়ের লোকজন। সকলের মধ্যে রয়েছে সম্প্রীতি ও সহমর্মিতা।

নেওয়াবাড়ি টিলার সৌন্দর্য্য :
সবুজ গালিচায় মোড়া নেওয়াবাড়ি টিলা ভ্রমন পিয়াসী মানুষকে মুগ্ধ করবে। এখানে আসলে  কিছুক্ষনের জন্য হলেও হারিয়ে যেতে  হবে প্রকৃতির কোলে। টিলার উপরে উঠলে মনে হবে  পাহাড় যেন দূর আকাশের সাথে মিশে একাকার হয়ে গেছে। এখানে সারাক্ষণ বিরাজ করে বিভিন্ন প্রজাতির পাখির কিচির মিচির আওয়াজ। চারপাশের প্রাকৃতিক দৃশ্য ভ্রমন পিয়াসীদের মুগ্ধ করে তুলবে সারাক্ষণ। পাহাড়ের উঁচু চূড়ায় এমন সমতল ভূমি বৃহত্তর ময়মনসিংহের আর কোন পাহাড়ে নেই।

যেভাবে যাবেন :
শেরপুর জেলা শহর থেকে ৩০ কিলোমিটার উত্তরে নেওয়াবাড়ি টিলার অবস্থান। এ টিলায়  আসতে হলে নিজস্ব যানবাহন বা সিএনজি যোগে জেলা শহরের খোয়ারপাড় এলাকা থেকে শ্রীবরদী সড়ক হয়ে সোজা উত্তরে শ্রীবরদী পৌর শহরের উপর দিয়ে বালিজুড়ি রেঞ্জ অফিসে আসতে হবে। রেঞ্জ অফিসের পশ্চিম পার্শ্বেই অবস্থিত নেওয়াবাড়ি টিলা। কম খরচে, কম সময়ে গারো পাহাড়  ভ্রমণ আপনাকে দেবে অনাবিল আনন্দ।

স্থানীয়দের দাবি :
পর্যটন শিল্প গড়ে তোলার লক্ষ্যে বর্তমান সরকার প্রতি জেলায় ১০টি করে পর্যটন কেন্দ্র স্থাপনের ঘোষণা দিয়েছেন। ২০ একর আয়তনের বিশাল এ সমতল টিলায় পর্যটন করপোরেশন, জেলা প্রশাসন কিংবা বেসরকারি উদ্যোগে আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলা সম্ভব। এরই ধারাবাহিকতায় নেওয়াবাড়ি টিলায় আধুনিক পর্যটন কেন্দ্র স্থাপন করা হলে দেশ-বিদেশের পর্যটকরা এখানে আসতেন। পাশাপাশি এ অঞ্চলের উন্নয়নসহ বহু লোকের কর্মসংস্থানের পথও সৃষ্টি হতো।


শাহরিয়ার মিল্টন
সম্পাদক, শেরপুর টাইমস ডটকম
সহ সভাপতি , শেরপুর প্রেস ক্লাব
ই-মেইল ঃ shahriar.milton@gmail.com


সর্বশেষ


সর্বাধিক পঠিত

Music | Ringtone | Book | Slider | Newspaper | Dictionary | Typing | Free Font | Converter | BTCL | Live Tv | Flash Clock Copyright@2010-2014 turiseguide24.com. all right reserved.
Developed by i2soft Technology